অস্ট্রেলিয়ায় পিৎজা কর্মীর ‘মিথ্যা’ বলার পরিণামে এক অঙ্গরাজ্য লকডাউনে

অস্ট্রেলিয়ার সাউথ অস্ট্রেলিয়া অঙ্গরাজ্য। করোনা শনাক্ত হওয়ার পর ওই ব্যক্তির সঙ্গে কোনো পিৎজা শপের সংশ্লিষ্টতা ছিল কিনা, জানতে চাওয়া হলে তিনি মিথ্যা বলেন। সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে আজ শুক্রবার এ খবর জানানো হয়েছে।

কী মিথ্যা বলেছিলেন সাউথ অস্ট্রেলিয়ার ওই ব্যক্তি? বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাউথ অস্ট্রেলিয়া অঙ্গরাজ্যে বর্তমানে ৩৬ জন সক্রিয় করোনা রোগী থাকায় গত বুধবার থেকে কড়াকড়ি লকডাউনে যাওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়। তবে এই লকডাউন তুলে নেওয়ার কথাও চিন্তা করা হয়েছিল। কিন্তু, একটি পিৎজা শপের কর্মচারীর মিথ্যা বলার কারণে লকডাউন তুলে নেওয়ার চিন্তা থেকে সরে আসে প্রশাসন।

পিৎজা শপের ওই কর্মচারি জানিয়েছিলেন, তিনি ওই পিৎজা শপে একজন ক্রেতা হিসেবে গিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি যে ওই পিৎজা শপের একজন কর্মচারী সেটি তিনি আড়াল করেন।

এর মধ্যেই ওই ব্যক্তির মিথ্যা বলার বিষয়টি খোলাসা হওয়ার পর কঠোর অবস্থান নিয়েছে অঙ্গরাজ্যের প্রশাসন। এক মিথ্যা বলার কারণে ঝুঁকি এড়াতে ছয় দিনের লকডাউন দিতে বাধ্য হয়েছে প্রশাসন।

ব্যাপক আকারে করোনা পরীক্ষা, লকডাউন ও কন্ট্যাক্ট ট্রেসিংয়ের মাধ্যমে করোনা সংক্রমণ শূন্যের কোঠায় আনতে বদ্ধপরিকর অস্ট্রেলিয়ার সরকার।

সাউথ অস্ট্রেলিয়া অঙ্গরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী স্টিভেন মার্শাল বলেছেন, ‘আমরা ওই ব্যক্তির কর্মকাণ্ডে প্রচণ্ড ক্ষিপ্ত। এর ফলে কী ধরনের পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে, তা আমরা সাবধানতার সঙ্গে নজর রাখছি।’

এদিকে, সাউথ অস্ট্রেলিয়ার পুলিশ কমিশনার গ্র্যান্ট স্টিভেনস জানিয়েছেন, ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে কোনো আইন প্রয়োগ করতে পারবে না পুলিশ। কারণ, মিথ্যা বলায় কোনো ধরনের আইন প্রয়োগের সিদ্ধান্ত এর আগে নেওয়া হয়নি।