আম্পানের আঘাতে লণ্ডভণ্ড পশ্চিমবঙ্গ, অন্তত ১০ জনের মৃত্যু

কলকাতাসহ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে গতকাল বুধবার বিকেল থেকে ঘূর্ণিঝড় আম্পান সাত থেকে আট ঘণ্টা ধরে তাণ্ডব চালানোর পর এখন কিছুটা শান্ত হয়েছে। তবে এখনো আকাশ মেঘলা রয়েছে।

গতকাল রাতে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ঘূর্ণিঝড়ে ১০ থেকে ১২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে চারজন কলকাতায় মারা গেছে। এর মধ্যে দুজন দেয়াল চাপা পড়ে এবং দুজন বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা গেছে। বাকিরা বিভিন্ন জেলায় মারা গেছে। সংবাদমাধ্যম বিবিসি বাংলা এ খবর জানিয়েছে।

মমতা বলেন, রাজ্যের দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলায় ঘূর্ণিঝড়টি প্রথম আঘাত হানে। এ জেলা ও উত্তর ২৪ পরগনায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে তার পরিমাণ কত, সেটি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

ক্ষয়ক্ষতির পুরো চিত্র পেতে বেশ কয়েক দিন লেগে যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সুন্দরবন ও তৎসংলগ্ন এলাকা যেমন পাথরপ্রতিমা, ফুলতলি, নামখানা, বাসন্তি— এসব এলাকায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

মমতা জানান, দক্ষিণ ২৪ পরগনা ও উত্তর ২৪ পরগনা একেবারে ধ্বংস হয়ে গেছে।

উপকূলবর্তী এলাকা এবং কলকাতার বহু এলাকা এখনো বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। সমস্যা দেখা দিয়েছে মোবাইল নেটওয়ার্ক এবং ইন্টারনেট সংযোগেও।

বিভিন্ন এলাকায় ঝড়ের কবলে পড়ে গাছ-পালা, ট্রাফিক সিগন্যালের পোস্ট ভেঙে পড়ার খবর মিলেছে। এ ছাড়া কাঁচা বাড়ি-ঘর ভেঙে পড়েছে। বেশ কিছু বাড়ির টিনের চালও উড়ে গেছে।