এক মাসে বিসিক শিল্পনগরীতে কর্মসংস্থান বেড়েছে ৫৭ হাজারেরও বেশি

করোনা প্রাদুর্ভাবের মধ্যেই গত এক মাসে বিসিক শিল্পনগরীগুলোতে নতুন ৩১৩টি শিল্প ইউনিট চালু হয়েছে। পাশাপাশি কর্মসংস্থান বেড়েছে ৫৭ হাজার ৫৯০ জনের।

জানা গেছে, চলমান করোনা পরিস্থিতিতে দেশের ৭২টি বিসিক শিল্পনগরীর পাঁচ হাজার ১৬৪টি শিল্প ইউনিটের মধ্যে তিন হাজার ২১৪টি শিল্প ইউনিট চালু রয়েছে। এসব শিল্প-কারখানায় ছয় লাখ ৩৬ হাজার ৫৫৩ জনের মধ্যে কাজ করছে চার লাখ ২২ হাজার ৯৮৫ জন।

বিসিক শিল্পনগরীগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনের বিষয়টি মনিটরিংয়ের লক্ষ্যে গঠিত কমিটির তৃতীয় সভায় আজ বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) এসব তথ্য জানানো হয়।

বিসিক পরিচালক মো. খলিলুর রহমান সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল মাধ্যমে অনুষ্ঠিত এ সভায় শিল্প মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি ও উপসচিব নেপাল চন্দ্র কর্মকার, কল-কারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের যুগ্ম মহাপরিদর্শক (স্বাস্থ্য) ডা. মো. মোস্তাফিজুর রহমান, বিসিক শিল্পনগরী শিল্প মালিক সমিতির সভাপতি মো. মহিউদ্দিন শেখসহ বিসিকের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অংশ নেন।

সভায় বিসিকের আঞ্চলিক কার্যালয়গুলো থেকে প্রাপ্ত শিল্পনগরীর কারখানায় স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করা হয়। প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, শিল্পনগরীর অধিকাংশ শিল্প-কারখানায় সরকার নির্ধারিত স্বাস্থ্য বিধি অনুসরণ করে উৎপাদন কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। এর ফলে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের নিরবচ্ছিন্ন সাপ্লাই চেইন সচল রাখা সম্ভব হচ্ছে।

সভায় শতভাগ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে উৎপাদন অব্যাহত রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের তাগিদ দেওয়া হয়। এ বিষয়ে শিল্পনগরী পর্যায়ে মনিটরিং কার্যক্রম আরো জোরদারের নির্দেশনা দেওয়া হয়। একইসঙ্গে সকল শিল্প-কারখানায় থার্মাল স্ক্যানার ব্যবহার নিশ্চিতকরণ এবং কর্মরত শ্রমিক কর্মচারীদের ইমিউনিটি বৃদ্ধির জন্য যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করার পরামর্শ দেওয়া হয়।