‘কোনো অভিনেত্রীর ছবিই সালমানের মতো ৫০০ কোটি আয় করতে পারেনি’


বলিউড অভিনেত্রী কাজল এখন তাঁর অভিনীত ‘হেলিকপ্টার ইলা’ ছবির প্রচারণা নিয়ে ব্যস্ত। বলেছেন, বক্স অফিসে যেমন সালমান খানের ছবি ৫০০ কোটি রুপির ব্যবসা করতে পেরেছে, তেমনি কোনো অভিনেত্রীর ছবিই তা করতে পারেনি।

হিন্দুস্তান টাইমস জানিয়েছে, গত বৃহস্পতিবার ‘হেলিকপ্টার ইলা’ ছবির প্রচারণার অংশ হিসেবে গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে কাজল এ কথা বলেন।

হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে যখন নারী-পুরুষ অভিনেতাদের পারিশ্রমিক-বৈষম্য নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন অনেকে ও অনেক অভিনেত্রীই এর বিরুদ্ধে কথা বলছেন, ঠিক তখনই এমন মন্তব্য এল অগ্রজ অভিনেত্রী কাজলের কাছ থেকে।

এই ইস্যু নিয়ে কাজল বলেন, ‘বৃহৎ অর্থে আমি মনে করি, বক্স অফিসের সংগ্রহের ওপর এই ইস্যু নির্ভর করে এবং অবশ্যই লিঙ্গ ব্যাপারটা আছে; কিন্তু এটাও দেখা উচিত, একজন অভিনেত্রীও সালমান খানের ছবির মতো ৫০০ কোটি রুপি আয় করতে পারেনি। প্রত্যেক সিনেমার সাফল্যে অভিনেত্রী অবিচ্ছেদ্য অংশ, কিন্তু শেষ পর্যন্ত এটা ব্যবসা।’

তবে বর্তমানে অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে, দর্শক নারীনির্ভর সিনেমা আগের তুলনায় অনেক বেশি গ্রহণ করছে—এমনটাই মত কাজলের।

‘আমি কৃতজ্ঞ, এখন দর্শক বদলে গেছে এবং তাঁরা কাহানি ও রাজির মতো ছবিগুলো দেখতে থিয়েটারে যাচ্ছে। মানুষ এ ধরনের ছবি বানাচ্ছে, কারণ এটা তাঁকে আর্থিক সাফল্যও এনে দিচ্ছে। আর এসব ঘটছে একমাত্র দর্শক-পরিপ্রেক্ষিত বদলানোর কারণেই।’

‘এটা খুবই সহজ যুক্তি যে, তুমি যদি মুদি দোকানে যাও, তবে দোকানের মালিক সেসব পণ্য বিক্রি করবে, যেগুলো বেশি বিক্রি হয় এবং ছবি তৈরির ক্ষেত্রেও তোমাকে এটা বিবেচনায় নিতে হবে। আমি এ কথা বলছি না যে, ইন্ডাস্ট্রিতে লিঙ্গবৈষম্য নেই। নিশ্চিতভাবেই লিঙ্গবৈষম্য আছে এবং পারিশ্রমিক কাঠামো বদলাতে হবে।’

বিয়ের পর কাজলকে বেছে বেছে সিনেমা করতে দেখা গেছে।

এখন ছবির সেটও বদলে গেছে। তিনি যেভাবে অভ্যস্ত, তা কি খুব মিস করেন?

‘আমি আদৌ মিস করি না। আমি দুই বা তিন বছরে একটি ছবিতে কাজ করতে পেরে খুশি। আমি কাজ উপভোগ করি, কিন্তু মনে করি কাজ জীবনের একটি অংশ মাত্র। এর বাইরে পরিবার আছে, যা সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ।’

‘বাচ্চাদের আমাকে প্রয়োজন। আমরা মনে করি, ছেলেমেয়েরা বড় হয়ে গেলে মা-বাবার প্রয়োজন নেই। কিন্তু আমাদের বিয়ের পরও মা-বাবার সাপোর্ট দরকার ছিল। আমি আমার জীবন উপভোগ করি।’