‘ছাত্রলীগের নেতাকর্মীকে উত্তম চরিত্রের অধিকারী হতে হবে’

গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী সাংসদ শরীফ আহমেদ বলেছেন, ছাত্রলীগের প্রত্যেকটি নেতাকর্মীকে উত্তম চরিত্রের অধিকারী হতে হবে। তাদেরকে বিনয়ী, সদালাপী, মেধাবী এবং দেশপ্রেমের আদর্শে উজ্জীবিত হতে হবে। রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি শ্রেণিকক্ষে তাদেরকে সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে হবে। আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে ভবিষ্যতের উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশের উন্নত নাগরিক হিসেবে নিজেদেরকে গড়ে তুলতে হবে।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সোমবার ময়মনসিংহের আনন্দমোহন কলেজ শাখা ছাত্রলীগ কর্তৃক আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নিজের হাতে গড়ে তোলা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই সংগঠনটি দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব এবং সাধারণ মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় আপসহীন নেতৃত্ব দিয়ে চলেছে। এ দেশের স্বাধীনতা অর্জন এবং স্বাধীনতা পরবর্তী বাংলাদেশে স্বাধীনতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধী, মাদকসেবী, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ দমনে ছাত্রলীগ বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করে আসছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে তার সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সুদূরপ্রসারী নানামুখী কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন। ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের প্রাক্কালে তিনি দিনবদলের সনদ ভিশন : ২০২১ ঘোষণা করেছিলেন। ভিশন: ২০২১ সফলভাবে বাস্তবায়নের ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রী একটি উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে ভিশন ২০৪১ ঘোষণা করেছেন। ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়নের জন্য সরকার নানামুখী পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। সেইসাথে অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়নের কাজ প্রায় চূড়ান্ত। সর্বোপরি ডেল্টা প্লান ২১০০ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এক মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়েছে সরকার। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত ছাত্রলীগের প্রতিটি নেতাকর্মীকে শেখ হাসিনার সেই লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে সচেষ্ট থাকতে হবে। একই সাথে স্বাধীনতাবিরোধী- যুদ্ধাপরাধী, জামাত-শিবির চক্রের সকল চক্রান্ত সম্পর্কে সজাগ থাকতে হবে।