জাতির পিতাকে ডিজিটাল পদ্ধতিতে জানতে দারুণ অ্যাপ

প্রজন্মকে নিজেদের মতো করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে জানার সুযোগ করে দিয়েছে ‘বঙ্গবন্ধু’ অ্যাপ।

জাতির পিতাকে জানতে চাওয়া নতুন প্রজন্মের সাড়া পেয়েছে অ্যাপটি। এখন পর্যন্ত প্রায় ১ লাখ মানুষ অ্যাপটি ডাউনলোড করেছে। যুগের তথ্য চাহিদাপূরণে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কিত তথ্যে আরও সমৃদ্ধ হচ্ছে অ্যাপটি।

অ্যাপটি ওপেন করার পর মোবাইলের স্ক্রিনের একেবারে উপরে বামে ক্যাটাগরি অপশনে ক্লিক করলে ৭টি ক্যাটাগরি আসবে।

শুরুতেই আছে ‘আত্মজীবনী’। আত্মজীবনী ক্যাটাগরিতে সংক্ষিপ্ত জীবনীতে ১৯২০ থেকে শুরু করে ১৯৭৫ পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর জীবনের সংক্ষিপ্ত অংশ এবং অসমাপ্ত আত্মজীবনী অপশনে বঙ্গবন্ধুর লেখা ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ বইটির পিডিএফ কপি আছে।

এর পাশেই আছে বঙ্গবন্ধুর বজ্রগম্ভীর কণ্ঠে দেয়া কয়েকটি ঐতিহাসিক ভাষণের অডিও-ভিজ্যুয়ালে ভরা ‘ভাষণ’ নামের ক্যাটাগরি। এখানে ৭ মার্চের ভাষণের রঙিন সংস্করণ সংযুক্ত করা হয়েছে। এছাড়াও আছে ১৯৭২ সালে ভারতে ভাষণ, স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ভাষণ, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ভাষণ, জুলিও কুরি পদক প্রাপ্তির সংবর্ধণা অনুষ্ঠানে ভাষণ, রেডিও ভাষণ, স্বাধীনতা দিবসের ভাষণ এবং প্রেস কনফারেন্সে দেয়া বঙ্গবন্ধুর বক্তব্য।

বঙ্গবন্ধু ফটো গ্যালারিতে আছে জাতির জনকের দুর্লভ ১১৩ টি স্থির চিত্র। এর পাশেই আছে ‘জাদুঘর’ ক্যাটাগরি। এখানে গুগল ম্যাপে বঙ্গবন্ধু জাদুঘর ও টুঙ্গিপাড়া জাদুঘরের পথ নির্দেশনা আছে।

এরপরে আছে ‘সাক্ষাৎকার’। এখানে আছে বিবিসি’র সাংবাদিক ডেভিড ফ্রস্টের নেয়া দুই পর্বের সাক্ষাৎকার, বঙ্গবন্ধুর একান্ত সাক্ষাৎকার, বঙ্গবন্ধুর বাবা-মা এর সাক্ষাৎকার, বিদেশি টিভি চ্যানেলে সাক্ষাৎকার, বিদেশি টিভি চ্যানেলে বক্তব্য।

এই অ্যাপের অন্যতম দৃষ্টি আকর্ষণ করা ক্যাটাগরি হচ্ছে ‘বঙ্গবন্ধু হাতে লেখা চিঠি’। এখানে আছে কন্যা শেখ হাসিনাকে লেখা চিঠি, শেখ লুতফর রহমান (বাবা) কে লেখা চিঠি, রেনু (স্ত্রী) কে লেখা চিঠি, তাজউদ্দিন আহমেদকে লেখা চিঠি, জহুর আহমেদ চৌধুরীকে লেখা চিঠি, এম এ আজিজকে লেখা চিঠি।
৭ নম্বর ক্যাটাগরিতে যুক্ত করা হয়েছে ৭ মার্চ ভাষণের পিডিএফ ফাইল।

বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের এই অ্যাপটি তৈরি করেছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। এতে কারিগরি সহায়তা দিয়েছে দেশের অন্যতম মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এমসিসি লিমিটেড।

অ্যাপটি গত বছর ১৫ আগস্টের পর সর্বশেষ আপডেট হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু অ্যাপে নতুন কোনো কনটেন্ট যুক্ত করতে হলে বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের অনুমোদন দরকার হয়। কনটেন্টগত কোন নতুন কিছু এই অ্যাপে এখনো যুক্ত হয়নি। তবে সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত এই অ্যাপটি বঙ্গবন্ধুর ওপর ভিত্তি করে বানানো মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনগুলোর মধ্যে একটি পূর্ণাঙ্গ অ্যাপ।