জয়ের জন্য মাশরাফির রংপুরের দরকার ১৩৬ রান


তারকাবহুল রংপুর রাইডাইর্সের বিপরীতে রাজশাহী কিংস নেহাতই সাদামাটা এক দল। টসে জিতে মাশরাফি বিন মুর্তজা তাই বোলিং করার সিদ্ধান্ত নিতে দেরি করেননি। লক্ষ্য ছিল মেহেদী মিরাজের দলকে কম রানে বেঁধে ফেলা। শেষ পর্যন্ত পরিকল্পনায় সফল হয় রংপুরের বোলাররা। অধিনায়ক মাশরাফি বল হাতেও সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন। মাত্র ২২ রানে তুলে নেন ২ উইকেট। বাউন্ডারি খেয়েছেন মাত্র ১টি। রাজশাহী কিংসের সংগ্রহ দাঁড়িয়েছে ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৩৫ রান।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই রংপুর অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার আগুনে বোলিংয়ের শিকার হয় রাজশাহী কিংস। ম্যাশের করা ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের দ্বিতীয় বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে শফিউল ইসলামের হাতে ধরা পড়েন রাজশাহী অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজ (০)। অপর ওপেনার মুমিনুল হককে (১৪) ফেরত পাঠান সোহাগ গাজী। ক্রমেই ভয়ংকর হয়ে উঠছিলেন সৌম্য সরকার। ১৩ বলে ২ চার ১ ছক্কায় ১৮ করা এই হার্ডহিটার মাশরাফির দ্বিতীয় শিকার হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরেন।

চাপে থাকা রাজশাহী কিংসকে পথ দেখায় হাফিজ-জাকিরের জুটি। ভুল বোঝাবুঝিতে হাফিজ (২৬) রান-আউট হয়ে গেলে ৪৪ রানের জুটির অবসান হয়। ফরহাদ রেজার বলে বোপারার তালুবন্দি হন লাওরি ইভান্স (২)। শেষের দিকে আর কেউ বড় রান করতে পারেননি। জাকির হাসান অপরাজিত থাকেন ৩৬ বলে ২ চার ১ ছক্কায় ৪২ রানে। ২০ ওভারে রাজশাহীর সংগ্রহ দাঁড়ায় ৮ উইকেটে ১৩৫ রান। ২টি করে উইকেট নেন মাশরাফি এবং ফরহাদ রেজা। শফিউল আর সোহাগ গাজী নেন ১টি করে।

চার ম্যাচের মধ্যে ২ ম্যাচ হারলেও পয়েন্ট টেবিলে অবস্থানের পরিবর্তন হয়নি। সেই অবস্থান আরও সংহত করতে আজ রবিবার দিনের প্রথম খেলায় রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে টস জিতে ফিল্ডিং নিয়েছে রংপুর রাইডার্স। সর্বশেষ ম্যাচে ঢাকা ডায়নামাইটসের কাছে শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে ২ রানে হেরেছিল বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় মুখোমুখি হবে চিটাগং ভাইকিংস এবং কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।