টঙ্গীতে ইয়াবা-ফেনসিডিলসহ বিজিবি সদস্য ও তার স্ত্রী গ্রেপ্তার


টঙ্গীতে ৫ হাজার ইয়াবা ট্যাবলেট ও ২৫০ বোতল ফেনসিডিল নিয়ে পুলিশের হাতে স্ত্রীসহ গ্রেপ্তার হয়েছেন বিজিবি থেকে বরখাস্ত হওয়া নায়েক মেহেদী হাসান। গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে দত্তপাড়া মো. শাহাদাত হোসেনের ভাড়াবাড়ি থেকে তাদের আটক করা হয়।

স্বামী-স্ত্রী দুজনই মাদকের শীর্ষ পাইকারী বিক্রেতা। মেহদীর বিরুদ্ধে মাদক ও নারী নির্যাতনের ৫টি এবং তার স্ত্রী লক্ষ্মী বেগমের বিরুদ্ধে ৬/৭টি মামলা রয়েছে।

মেহেদী হাসান ব্রাহ্মনবাড়িয়ার আখাউড়ার কালীবচ্ছ গ্রামের মৃত খালেকুজ্জামান খালেকের ছেলে। ২০১১ সালে বিজিবিতে কর্মরত অবস্থায় মাদবসহ গ্রেপ্তারের পর তাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়।

এ ব্যাপারে টঙ্গী থানার এসআই শুভ মন্ডল জানান, প্রতি মাসেই বাসা পাল্টাতেন মেহেদী (৩৪) ও তার স্ত্রী লক্ষ্মী বেগম (৩৮)। বাসা ভাড়া নেয়ার জন্য একেক সময় একেক পরিচয় দিতেন। একাধিক মামলা থাকলে ঘন ঘন বাসা পরিবর্তেনর কারণে তাদের গ্রেপ্তার করা যাচ্ছিল না। সীমান্ত এলাকা থেকে মাদক এনে টঙ্গী ও ঢাকার উত্তরায় বিক্রি করে আখাউড়ায় ফিরে যেত। এ মাসের শুরুতে মেহেদী দম্পতি দত্তপাড়ার শাহদাত হোসেনর বাড়িটি ভাড়া নেয়। তারপর থেকে তাদের ওপর নজরদারি চলছিল। গতকাল শুক্রবার অবস্থান নিশ্চিত হয়ে টঙ্গী পূর্ব থানার অফিসার ইনচার্জ মো. কামাল হোসেনের নির্দেশে ওই বাসায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করায়। তার ঘর থেকে মাদক গুলো পাওয়া য়ায়। আজ শনিবার মাদক আইনে মামলার পর তাদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।