টানা দরপতনের পর মূল্য সূচকের বড় উত্থান

টানা দরপতনের পর সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার দেশের প্রধান শেয়ারবাজর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মূল্য সূচকের বড় উত্থান হয়েছে। সেই সঙ্গে বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। অবশ্য ডিএসইর লেনদেন ৩০০ কোটি টাকার ঘরেই আটকে রয়েছে।

এদিন লেনদেন শেষে মূল্য সূচকের বড় উত্থান হলেও শুরুটা ছিল বিপরীত। লেনদেনের প্রথম ১০ মিনিটেই ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ৫ পয়েন্ট কমে যায়। এরপরই ঘুরে দাঁড়ায় সূচক। বেলা সাড়ে ১১টার পর লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম বাড়তে থাকে। ফলে সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতাও বাড়তে থাকে।

শেষ তিন ঘণ্টায় একের পর এক প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার কারণে দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইতে ২২৩টি প্রতিষ্ঠান দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৮৫টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের। আর ৪৬টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার কারণে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ৪৫ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ৭৭২ পয়েন্টে উঠে এসেছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ ১১ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৯৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর ডিএসই-৩০ সূচক ১৫ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৬৭৫ পয়েন্টে উঠে এসেছে।

মূল্য সূচকের উত্থানের পাশাপাশি ডিএসইতে বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। দিনভর বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৩২২ কোটি ৬৯ লাখ টাকা। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ২৭১ কোটি ৩৬ লাখ টাকার। সে হিসাবে লেনদেন বেড়েছে ৫১ কোটি ৩৩ লাখ টাকা।

বাজারটিতে টাকার পরিমাণে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে ন্যাশনাল টিউবসের শেয়ার। কোম্পানিটির ৯ কোটি ৫৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা গ্রামীণফোনের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৮ কোটি ৯১ লাখ টাকার। ৮ কোটি ১৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন।

এছাড়া লেনদেনের শীর্ষ ১০ কোম্পানির মধ্যে রয়েছে- খুলনা পাওয়ার অ্যান্ড প্রিন্টিং, যমুনা ব্যাংক, মুন্নু জুট স্টাফলার্স, বিবিএস কেবলস, সিলকো ফার্মাসিউটিক্যাল, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স এবং প্রিমিয়ার ব্যাংক।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৫৩ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৫৩৭ পয়েন্টে। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ২০ কোটি ৩৬ লাখ টাকা। লেনদেন অংশ নেওয়া ২৪০ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ১৬৯টির, কমেছে ৪৯টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২২টির।