ডিভোর্সের মামলা : আদালতের রায় শামির পক্ষে


স্ত্রী হাসিন জাহানের দায়ের করা মামলার একটিতে জয় পেলেন ভারতীয় পেসার মোহাম্মদ শামি। হাসিন জাহানের খোরপোশের আবেদন নাকচ করলেন বিচারক। প্রতি মাসে ৭ লক্ষ রুপি খোরপোশের দাবি জানিয়ে আদালতে আবেদন করেছিলেন হাসিন। যার পুরোটাই নাকচ হয়েছে। এছাড়া তিন বছর বয়সী মেয়ের পড়াশোনা ও অন্যান্য খরচের জন্য আরও ৩ লক্ষ রুপি চেয়েছিলেন হাসিন। আদালতের নির্দেশে এই রুপির তিন ভাগের একভাগও পাবেন না তিনি।

বৃহস্পতিবার আলিপুর আদালতের তিন নম্বর বিচারবিভাগীয় বিচারক নেহা শর্মা হাসিনের মাসে ৭ লক্ষ রুপি খোরপোশের আবেদন খারিজ করেন। তবে মেয়ের পড়াশোনা ও অন্যান্য খরচ বাবদ মাসিক ৮০ হাজার রুপি শামিকে দিতে হবে। প্রত্যেক মাসের ১০ তারিখের মধ্যে এই রুপি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

মোহাম্মদ শামির আইনজীবী সেলিম রহমান বলেন, ‘আমার মক্কেল মেয়ের খরচ দেবেন, এটা আগেই আদালতকে জানিয়েছিলাম। আদালতে তা মঞ্জুরও হয়েছে। হাসিন যে সিনেমায় অভিনয় করছে ও মডেলিংয়ের দুনিয়ায় ফিরে গেছে, তার প্রমাণ আমাদের কাছে রয়েছে।’

প্রসঙ্গত, হাসিন যেহেতু ফের মডেলিং শুরু করেছেন, তাই তাকে খোরপোশ দেওয়াতে আপত্তি জানানো হয়েছে শামির পক্ষ থেকে। তার আইনজীবী দাবি করেন, হাসিন এখন নিজেই উপার্জন করছেন। তাই শামির কাছে খোরপোশের কোনো প্রয়োজন তার নেই। শুধু মডেলিং নয়, হাসিন অভিনয়ের জগতেও পা রেখেছেন। বলিউডের একটি সিনেমাতেও দেখা যাবে তাকে।

হাসিনের আইনজীবী জাকির হোসেন পালটা যুক্তি দেন যে এখনও পাকাপাকি কোনও কাজ তিনি পাননি। বরং তিনি রয়েছেন কাজের খোঁজে। তাই এখনই খোরপোশ বন্ধ হলে সমস্যা হবে। কিন্তু, আদালত তাতে কর্ণপাত করেনি। হাসিনের খোরপোশ পুরো বন্ধ করা হয়েছে। এই রায়ের বিরুদ্ধে আবারও আদালতে যাওয়ার কথা ভাবছেন হাসিন।

প্রসঙ্গত, বছরে ১০ কোটি রুপি শামির আয় বলে দাবি করেছিলেন হাসিনের আইনজীবী। জাতীয় ক্রিকেট দলের সদস্যের তার থেকে প্রতি মাসে স্ত্রী ও কন্যার জন্য মোট ১০ লক্ষ রুপি দিতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয় বলে আবেদন করা হয়েছিল। কিন্তু, তাতে কাজ হয়নি। হাসিনের আইনজীবী বলেছেন, ‘শামির আয় নিয়ে আমাদের বক্তব্যের সমর্থনে কোনও প্রমাণ নেই বলে হাসিনের খোরপোশের দাবি খারিজ হয়েছে। আমরা ফের আবেদন করব।’

শামির আইনজীবী বরং হাসিনের বিরুদ্ধে প্রথম বিবাহের তথ্য গোপন করার অভিযোগ এনেছেন। তিনি যে এর আগেও বিয়ে করেছিলেন, তার দুই কন্যা সন্তান রয়েছে, তা জানানো হয়নি বলে দাবি করা হয়েছে। ম্যারেজ সার্টিফিকেটের এক ফটোকপি জমা দিয়ে শামির আইনজীবী সেলিম রহমান বলেন, ‘ম্যারেজ সার্টিফিকেটে হাসিনকে অবিবাহিত দেখানো হয়েছে। এতেই প্রমাণিত যে আমার মক্কেলের কাছে বিবাহিত কিনা সেই তথ্য গোপন করা হয়েছিল।’