থমথমে জাবি সংলগ্ন গেরুয়া বাজার, দোকানপাট বন্ধ

ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে সাভারে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) সংলগ্ন গেরুয়া বাজার এলাকায় জাবি শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় সেখানে এখনো থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

সংঘর্ষ এড়াতে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার রাতে সংঘর্ষের ঘটনায় এখন পর্যন্ত গেরুয়া বাজার এলাকার দোকানপাট বন্ধ রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। সংঘর্ষের কয়েক ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও এখনও মামলা হয়নি থানায়। স্থানীয়দের মধ্যে চরম আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে।

গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ৩টা পর্যন্ত গেরুয়া বাজার এলাকায় বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে অন্তত ৪০ জাবি আহত হন। ভাঙচুর করা হয় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের চারটি মোটরসাইকেল। সংঘর্ষে গেরুয়া বাজার এলাকায় ভাঙচুর করা হয় বেশ কয়েকটি দোকানপাট।

এলাকাবাসী বলছে, গত ১১ ফেব্রুয়ারি আশুলিয়ার পাথালিয়া ইউনিয়নের গেরুয়া বাজার এলাকায় সম্প্রতি বাতিঘর নামের একটি সংগঠন ক্রিকেট খেলার আয়োজন করে। সেই খেলায় একটি দলের পক্ষ থেকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী খেলতে যান। এ সময় ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে একদল সন্ত্রাসী লাঠি সোটা ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে সেই দিনেই বাতিঘরের অফিসে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট করে সেইসঙ্গে দুটি বিকাশের দোকানসহ তিনটি দোকানে তালা ঝুলিয়ে দেয়। এ ঘটনায় গতকাল সন্ধ্যায় গেরুয়া বাজার এলাকায় নজরুল নামের এক যুবককে নিজ বাড়ি থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নিজেদের ভাড়া ঘরে নিয়ে মারধর করে। পরে মারধরের বিষয়টি এলাকাবাসীর মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে তাঁরা লাঠিসোঁটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে জাবি শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় জড়িয়ে পরে। আহত সবাইকে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, রাতের ঘটনার সূত্রপাত সম্পর্কে প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন জাবি শিক্ষার্থী জানান, কয়েকদিন আগে একটি ক্রিকেট টুর্নামেন্টকে কেন্দ্র করে স্থানীয় কয়েকজন যুবকের সঙ্গে জাবি শিক্ষার্থীদের ঝামেলা হয়। সমস্যা সমাধানে শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় যুবকদের সঙ্গে আলোচনা করতে যান বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী। আলোচনা চলাকালে আবার কথা কাটাকাটি হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের গেরুয়া বাজারের একটি ভবনে আটকে রাখা হয়। পরে স্থানীয়রা তাঁদের মারধর করেন। এতে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অভিষেক মণ্ডল, কার্যনির্বাহী সদস্য অ্যালেক্সসহ তিনজন আহত হন। এ সময় শিক্ষার্থীদের পাঁচটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে স্থানীয়রা। রাতভর এলাকাবাসীর সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ চলে জাবি শিক্ষার্থীদের।

তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম কামরুজ্জামান।