‘দিদির পাশে ছিলাম ‘দিদি’র পাশেই থাকব’

টালিগঞ্জে লেগেছে রাজনীতির ছোঁয়া। ‘শাশুড়ি’ পিয়া সেনগুপ্ত আর ‘হবু বৌ’ কৌশানি মুখোপাধ্যায় শাসকদলে। স্বাভাবিকভাবেই দলে ভারী তারা। এতদিন এই দলে ছিলেন অনুপ-পিয়া সেনগুপ্তের একমাত্র ছেলে বনি সেনগুপ্তও।

তবে আনন্দবাজার পত্রিকা বলছে, হঠাৎই নাকি অভিনেতাকে দেখা গেছে গেরুয়া শিবিরের সমর্থক সদস্য সোহেল দত্তের বাড়িতে। তাদের খুব আড্ডা হয়েছে বলেও খবর পাওয়া গিয়েছে। আড্ডার সেসব ছবি সোহেলের সামাজিক যোগাযোমাধ্যমে পোস্ট করতেই আলোচনা শুরু হয় চারিদিকে। যশ দাশগুপ্ত, হিরণ চট্টোপাধ্যায়, শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়ের পর বনিরও নাকি পছন্দ পদ্মফুল!

আসল ঘটনা জানতে পত্রিকাটি বনির সঙ্গে যোগাযোগ করে। বিজেপিতে যোগদানের খবর শুনে হতবাক হন অভিনেতা। তিনি বিস্মিতস্বরে বলেন, ‘আমি বিজেপি তে? এ রকম কোনও পরিকল্পনাই নেই! দিদির পাশে ছিলাম। ‘দিদি’র পাশেই থাকব’। সোহেলের সঙ্গে সাক্ষাৎ নিয়ে বনির দাবি, বন্ধুত্বের খাতিরে দেখা করতে গিয়েছিলেন। তাতেও যে রাজনীতি ছায়া ফেলবে, ভাবতে পারেননি।

কিন্তু সাক্ষাৎকারের কিছুক্ষণ পরেই নজরে আসে সোহেলের পোস্টটি সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। শুধু আড্ডা মারার জন্য দেখা করতে গেলে পোস্ট সরানোর কী প্রয়োজন কী ছিল সে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।

বেশ কিছুদিন আগেই একই ভাবে বিজেপিতে যোগদানের কথা অস্বীকার করেছিলেন পরিচালক অরিন্দম শীল। বুধবার (৩ মার্চ) বিকেলে তিনিই বিজেপি নেতা শঙ্কুদেব পণ্ডার সঙ্গে যোগ দিয়েছিলেন আড্ডায়। তেমনই কি কিছু আগামী দিনে ঘটাতে চলেছেন বনিও?