দুই তরমুজ প্রায় ২৫ লাখ!


জাপানীরা এবার বলতেই পারে যে, সেদেশে তরমুজের দামে গাড়ি কেনা যায়! আর বলবে না কেন? সম্প্রতি জাপানে উন্নত জাতের একজোড়া তরমুজ বিক্রি হয়েছে ৩২ লাখ ইয়েন মূল্যে! যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ২৪ লাখ ৭৬ হাজার টাকারও বেশি। এ দামে কেবল জাপানে কেন, অনেক দেশেই একটি ভালোমানের গাড়ি কেনা সম্ভব।

কিন্তু এত ফল থাকতে তরমুজই কেন দামের হবে? আসলে জাপানের সংস্কৃতিতে তরমুজ মানুষের খানদান প্রকাশ করে।

আসলে ফলের মৌসুমে এ ধরনের দামি ফলের কেনা-বেচা শুরু হয় জাপানে। তখন উচ্চবিত্ত ক্রেতারাও সামাজিক অবস্থান ও সম্মানের জানান দিতে দামি ফল খুঁজে থাকেন। বিক্রেতারাও এই ক্রেতাদের কথা মাথায় রেখে দোকান সাজাতে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ফল সংগ্রহ করেন।

উত্তর হক্কাইদোর সাপ্পোরো সেন্ট্রাল পাইকারি বাজারে মৌসুমের প্রথম ‘ইউবারি তরমুজ’ ওঠে। সেখানেই দামি তরজুম নিলামে ওঠে। স্থানীয় আরেকটি ফ্রুট প্যাকিং ফার্ম সর্বোচ্চ দাম হাঁকিয়ে কিনে নেয় এই বহুমূল্যের দুটো তরমুজ।

এমন ঘটনা জাপানে নতুন নয়। বছর দুয়েক আগে এমন বিলাসী দুটো ফল বিক্রি হয়েছিল ৩০ লাখ ইয়েনে।

বাজারের কর্মকর্তা তাতসুরো শিবুটা জানান, এবার মে মাসের প্রথম থেকেই যথেষ্ট সূর্যের আলো মেলার ইউবারি তরমুজের ভালো ফলন হয়েছে।

সেরা মানের ইউবারি তরমুজ সবচেয়ে ভালো স্মুথি বানানোর জন্যে। এই তরমুজের বৃন্তের আকৃতি থাকে ইংরেজি ‘টি’ অক্ষরটির মতো। এই তরমুজ সাধারণত অলংকৃত বাক্সে বিক্রি করা হয়।

আসলে জাপানে অন্যান্য সাধারণ ফলের দামও তুলনামূলক অনেক বেশি। সেখানে একটি আপেল কিনতেই গড়ে ৩ ডলার গুনতে হয়।