ধোঁকা দিয়ে রানআউট, বিতর্কে ডি কক

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে লড়াই করে হেরেছে পাকিস্তান। ৩৪২ রানের বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৭ রানে হেরেছে তারা। কিন্তু দলের পক্ষে অনবদ্য এক ইনিংস খেলেছেন ফখর জামান। ডাবল সেঞ্চুরির আশা জাগিয়েও শেষ পর্যন্ত থেমেছেন ১৯৩ রানে। দুভার্গ্যবশত রান আউটের ফাঁদে পড়ে ফিরতে হয়েছে এই বাঁহাতি ওপেনারকে।

তবে খেলা শেষে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠেছে ফখর জামানের আউট নিয়ে। ১৫৫ বলে ১৯৩ রানে ঝলমলে ইনিংস খেলে বিদায় নেন ফখর। একের পর এক পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার দিনে আলো ছড়াচ্ছিলেন ফখর। শেষ দিকে ম্যাচ জয়ের আপ্রাণ চেষ্টা ছিল তার। কিন্তু দুই রান নিতে গিয়ে রান আউটের ফাঁদে পড়েন। প্রোটিয়া উইকেটরক্ষক বল নিয়ে বোলারের দিকে থ্রো করার ইঙ্গিত করেন। কিন্তু বল তার গ্লাভসেই ছিল। এ সময় ফখর জামানের দৌড়ের গতি কমে এলে ডি কক রান আউট করে দেন তাকে। এরপরই জয়ের আশা শেষ হয়ে যায় পাকিস্তানের।

ফখরের রানআউট নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। ফেক ফিল্ডিংয়ের অভিযোগ উঠেছে উইকেটরক্ষক ডি ককের বিরুদ্ধে, যা কোড অব কন্ডাক্টের ৪১.৫.১ ধারা ভঙ্গ। আর এর কারণে ডি ককের শাস্তিও হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ডি ককের চতুরতা অবলম্বনের বিষয়টিকে পাকিস্তানের সাবেকরাও বেশ সমালোচনা করেছেন। তবে মাঠের আম্পায়ার এবং আফ্রিকান ক্রিকেটাররা মনে করছেন এটি খেলারই অংশ।

দলকে জেতাতে না পারলেও রেকর্ড গড়া ইনিংসে ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার জিতেছেন ফখর জামান। এদিকে, ম্যাচ শেষে নিজের আউটের জন্য ডি ককের চতুরতা নয়, বরং নিজের ভুলকেই দুষছেন তিনি।

হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে ১-১’এ সমতা বিরাজ করছে। সিরিজ নির্ধারণী শেষ ওয়ানডে অনুষ্ঠিত হবে বুধবার (৭ এপ্রিল) সেঞ্চুরিয়ানে।