নারায়ণগঞ্জে ওসির পর অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে বদলি

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে রয়েল রিসোর্টে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে নারীসহ অবরুদ্ধ ও পরবর্তীতে সহিংস ঘটনা সৃষ্টির কারণে সোনারগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহারের পর একই ঘটনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) টিএম মোশাররফ হোসেনকে বদলি করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জায়েদুল আলম এই বদলির আদেশ দিয়েছেন। যদিও জেলা পুলিশের তরফ থেকে এ বদলিকে রুটিন বদলি বলে দাবি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম বলেন, হেফাজতের মামুনুল হক ইস্যুতে উদ্ভুদ পরিস্থিতিতে রবিবার রাতে সোনারগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। একই ঘটনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) টিএম মোশাররফ হোসেনকে খুলনা রেঞ্জে বদলি করা হয়েছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোস্তাফিজুর রহমান বলেছেন, হেফাজত নেতা মামুনুল ইস্যুতে নয়, রুটিন মোতাবেক টিএম মোশাররফ হোসেনকে গত ৫ এপ্রিল রাতে খুলনা পুলিশ রেঞ্জে বদলি করা হয়েছে।

জানা গেছে, গত ৩ এপ্রিল রাতে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক সোনারগাঁয়ের রয়েল রিসোর্ট নামের একটি অভিজাত হোটেলে কথিত স্ত্রীসহ অবরুদ্ধ হওয়ার পর ব্যাপক ভাংচুর করেন তার কর্মী-সমর্থকরা। ওই সময় ঘটনাস্থলে গিয়ে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে জিজ্ঞাসাবাদ করে ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) টিএম মোশাররফ হোসেন।

এ ঘটনায় ছাত্রলীগ ও যুবলীগকে দায়ী করে রাতেই উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম ও নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সোহাগ রনির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, বাড়িঘরে ব্যাপক ভাঙচুর চালান হেফাজতের কর্মী-সমর্থকরা।

এ ঘটনার পর ওই রাতেই সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলামকে প্রত্যাহার করে জেলা পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়। এরপর গত সোমবার রাতে বদলি করা হলো অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) টিএম মোশাররফ হোসেনকে।