পৃথিবী চ্যাপ্টা! প্রমাণ করতে গিয়ে নভোচারীর মৃত্যু

প্রাচীনকাল থেকেই পৃথিবীর আকার নিয়ে প্রচুর তর্কবিতর্ক হয়েছে, এখনো চলছে। একদল একে চ্যাপ্টা মনে করলেও অন্যদলের কাছে এটা গোলাকার বা ডিম্বাকৃতির। বিষয়টি নিয়ে আদিকাল থেকে দু’দলের দ্বন্দ্বও চলছে। এবার পৃথিবীর আকৃতি চ্যাপ্টা এটা প্রমাণ করতে গিয়ে প্রাণ হারালেন এক মার্কিন নভোচারী। তিনি অবশ্য শখের বশে একজন নভোচারী।

জানা গেছে, ওই ব্যক্তি পেশায় একজন স্টান্টম্যান। ৬৪ বছর বয়সী ওই ব্যক্তির নাম মাইকেল হিউজ।

স্থানীয় সূত্র বলছে, ক্যালিফোর্নিয়ার জনবিহীন একটি জায়গায় বাস্পচালিত রকেট ওড়ানোর চেষ্টা করছিলেন মাইকেল। কিন্তু, রকেটটি ওড়ার পরেই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। তারপর সজোরে আছড়ে পড়ে মাটিতে। চোখের নিমিষে কয়েকবার বিস্ফোরণ হয়ে আগুন ধরে যায়। এর ফলে ঘটনাস্থলে করুণ মৃত্যু হয় মাইকেলের।

সায়েন্স চ্যানেলের পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি প্রকাশ করে শোকপ্রকাশ করা হয়েছে।

তারা টুইট করে বলেছে, ক্যালিফোর্নিয়ার বারসটো এলাকার বাসিন্দা মাইকেল পেশায় স্টান্টম্যান কাজ করতেন। বহুদিন ধরেই পৃথিবীকে চ্যাপ্টা বলে মনে করতেন তিনি। মানুষের কাছে এটা প্রমাণ করার জন্য অনেক চেষ্টাও করেন। সম্প্রতি তিনি আমাদের সঙ্গে এই বিষয়ে একটি চুক্তি করেছিলেন। তাতে উল্লেখ করা হয়েছিল, মাইকেল তাঁর বাড়িতে তৈরি করা রকেটের সাহায্যে দেড় হাজার মিটার রাস্তা অতিক্রম করে পৃথিবী চ্যাপ্টা এটা প্রমাণ করবেন। আর আমাদের চ্যানেল তার সরাসরি সম্প্রচার করবে। কিন্তু, স্থানীয় সময় শনিবার সেই রকেট ওড়ার সময় দুর্ঘটনা ঘটে। এর ফলে মর্মান্তিকভাবে তাঁর মৃত্যু হয়। আমরা এই ঘটনায় আন্তরিকভাবে দুঃখপ্রকাশ করছি। তাঁর পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনদের প্রতি আমাদের গভীর সমবেদনা।

এ বিষয়ে মাইকেলের মুখপাত্র ড্যারেন শুস্টার বলেন, পৃথিবী চ্যাপ্টা এটা জনসমক্ষে প্রমাণ করতে চেয়েছিলেন তিনি। যদিও নিজে কতটা তা বিশ্বাস করতেন তা নিয়ে আমার যথেষ্ট সন্দেহ আছে। আসলে উনি সরকারি ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছেন। আর পৃথিবী চ্যাপ্টা এটা প্রমাণ করার থেকে আমরা মানুষকে একটা অসাধারণ স্টান্ট দেখাতে চেয়েছিলাম।