পেসারদের দাপট, একাই লড়লেন মাসাকাদজা


বিকেএসপি কিংবা মিরপুর বা ফতুল্লা, হ্যামিল্টন মাসাকাদজার জন্য তিনটি মাঠই বেশ পয়মন্ত। জাতীয় দল ও ঢাকা লিগে খেলার সুবাদে মাঠগুলোতে একাধিক সাফল্য রয়েছে জিম্বাবুয়ের এ ক্রিকেটারের। সেই ধারাবাহিকতা আজও ধরে রাখলেন ডানহাতি ওপেনার।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফর কিংবা ঘরের মাঠে পাকিস্তান সিরিজ কোনোটাতেই সাফল্য নেই মাসাকাদজার। ব্যাট হাসছিল না তার। কিন্তু বাংলাদেশ সফরের শুরুতেই মেলে ধরলেন নিজেকে। প্রস্তুতি ম্যাচে বিসিবি একাদশের বিপক্ষে হাঁকিয়েছেন সেঞ্চুরি। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত একাই লড়েছেন ডানহাতি ওপেনার।

শুক্রবার বিকেএসপিতে বিসিবি একাদশের পেসারদের দাপটে উড়ে গেছে জিম্বাবুয়ে। টস জিতে আগে ব্যাটিং করতে নেমে ১৭৮ রানে গুটিয়ে গেছে তারা। সফরকারীদের ১০ উইকেটের প্রত্যেকটি নিয়েছেন পেসাররা। ডানহাতি পেসার ইবাদত হোসেন একাই নিয়েছেন ৫ উইকেট। জিম্বাবুয়ে সিরিজে মূল দলে ডাক পাওয়া পেসার সাইফউদ্দিন পেয়েছেন ৩ উইকেট। ১টি করে উইকেট পেয়েছেন ইমরান আলী ও মোহর শেখ।

জিম্বাবুয়ের ইনিংসকে ভাগ করতে হবে দুটি ভাগে। ৪৭ রান তুলতেই হারায় ৫ উইকেট। এরপর ১২৪ রানের প্রতিরোধ। মাসাকাদজা ও চিগাম্বুরার ষষ্ঠ উইকেটের জুটি ভাঙার পর তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে তাদের লেট অর্ডার ব্যাটিং। ৭ রানে শেষ ৫ উইকেট হারায় সফরকারীরা। তাতেই শেষ জিম্বাবুয়ের ইনিংস।

স্পোর্টিং উইকেটে শুরু থেকেই বল ব্যাটে আসছিল। ব্যাটসম্যানরা শুরু থেকেই স্বাভাবিক উচ্চতায় বল পাচ্ছিলেন। শট খেলছিলেন অবলীলায়। কিন্তু নতুন বলে বাংলাদেশের পেসারদের দাপট দেখানো শুরু তৃতীয় ওভারে। ইবাদতের বেরিয়ে যাওয়া বলে খোঁচা দিয়ে উইকেটের পিছনে ক্যাচ দেন আরভিন (১)। প্রাক্তন অধিনায়ন ব্রেন্ডন টেলরকে টিকতে দেননি সাইফউদ্দিন। বাউন্ডারিতে রানের খাতা খোলা টেলর সোজা বল মিস করে এলবিডব্লিউ হন ৬ রানে।

নতুন ব্যাটসম্যান শন উইলিয়ামস ইবাদতের বলে কভারে মোসাদ্দেকের ক্যাচে পরিণত হন ১ রানে। অভিজ্ঞ সিকান্দার রাজা হতাশ করেন দলকে। রাজশাহীর হয়ে একটি মাত্র প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলা মোহর শেখের বলে এলবিডব্লিউ হন ৯ রানে। পিটার মুরও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ইমরান আলীর শর্ট বল তুলে মারতে গিয়ে থার্ড ম্যানে দাঁড়ানো সাইফউদ্দিনের হাতে ক্যাচ দেন ৪ রান করা মুর। ৪৭ রান তুলতেই ৫ উইকেট নেই জিম্বাবুয়ের।

শতরানের আগে গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কা তৈরি হয়। কিন্তু রুখে দাঁড়ান মাসাকাদজা। তাকে সঙ্গ দেন অভিজ্ঞ চিগাম্বুরা। দুজনের ১২৪ রানের জুটিতে রানের সাচা সচল থাকে সফরকারীরা। এ সময়ে মাসাকাদজা তুলে সেঞ্চুরি। ৯১ বলে ফিফটি ছোঁয়া মাসাকাদজা পরের পঞ্চাশ রান তোলেন ৪৩ বলে। তার সেঞ্চুরির পরপরই পথ হারায় জিম্বাবুয়ে।