বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিষয়ে তদন্ত কমিশন গঠন করতে হবে : শেখ সেলিম

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী শেখ ফজলুল করিম সেলিম বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর খুনিদের অনেক কষ্ট করে বিচার করেছেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু এ খুনের সঙ্গে অনেকেই জড়িত ছিলো। জড়িত সকলকে চিহ্নিত করতে একটি তদন্ত কমিশন গঠন করতে হবে। সরকার দ্রুতই এবিষয়ে উদ্যোগ নেবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেছেন।

আজ মঙ্গলবার রাতে জাতীয় সংসদ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাব নিয়ে আলোচনাকালে তিনি এসব কথা বলেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনে তিনি আরো বলেন, স্বাধীনতার পরে যারা বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণ করেছে তাদের অনেককে হত্যা করা হয়েছে। অনেকেউ বর্বর নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলার চেষ্টা করেছে খুনিরা। কিন্তু আহম্মকরা জানতো না জীবিত বঙ্গবন্ধুর চেয়ে মৃত বঙ্গবন্ধুর ক্ষমতা অনেক বেশি।

বঙ্গবন্ধু হত্যার ওপর লেখা বিভিন্ন লেখকের বইয়ের উদ্ধৃতি দিয়ে শেখ সেলিম বলেন, বঙ্গবন্ধু যখন একটি যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশকে বির্নিমানের চেষ্টা করছেন, তখন অতি উচ্চবিলাসী ও অতি বিপ্লবী সেনা কর্মকর্তা বঙ্গবন্ধুকে ক্ষমতা থেকে উৎখাতের চেষ্টা করেছে। কর্নেল তাহেরের নেতৃত্বে একটি গণবাহিনী তখন বঙ্গবন্ধুকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেবার চেষ্টায় লিপ্ত হয়। তারা ৮জন এমপিকে খুন করে। এমনকি ব্যাংকও লুট করে।

তিনি আরো বলেন, বিভিন্ন লেখকের বই থেকে জানা যায়, বঙ্গবন্ধুর খুনের সঙ্গে তখনকার সেনা বাহিনীর প্রায় সব সিনিয়র অফিসাররা জড়িত ছিলো। সেদিন বঙ্গবন্ধুর খুনের পরে কেউ ৩২ নম্বরে গিয়ে তার লাশও দেখে আসেনি। অথচ তখন দেশে প্রায় এক লাখ সেনা ও অফিসার ছিল, তাহলে কিভাবে মাত্র কয়েকজন জুনিয়ার অফিসার ও মাত্র দেড়-২০০ জন সেনা নিয়ে তাকে হত্যা করলো?

আওয়ামী লীগ নেতা সেলিম তখনকার সেনা প্রধান শফিউল্লাহর ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। তিনি জিয়াউর রহমান যে বঙ্গবন্ধু হত্যায় জড়িত ছিল তার বেশ কিছু প্রমানও উত্থাপন করেন। তিনি বঙ্গবন্ধু খুনের সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান।