বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাড়াতে আগ্রহ রুয়ান্ডার

বাংলাদেশের সাথে দ্বিপাক্ষিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাড়ানোর বিষয়ে রুয়ান্ডা আগ্রহী বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভিনসেন্ট বিরুটা। এছাড়া রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনের বিষয়ে রুয়ান্ডার সহযোগিতা অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন তিনি।

গতকাল পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেনের সাথে টেলিফোনে আলাপকালে রুয়ান্ডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ আগ্রহ প্রকাশ করেন। এ সময় দ্বৈত কর পরিহারে বাংলাদেশের প্রস্তাবের বিষয়ে শীঘ্রই রুয়ান্ডার মাতামত জানানো হবে বলে জানান সে দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত ১১ লক্ষ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে সেদেশে প্রত্যাবাসনের বিষয়ে রুয়ান্ডার সহযোগিতা অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন ভিনসেন্ট বিরুটা।

উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্য বৃদ্ধির বিষয়ে উভয় দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আগ্রহ প্রকাশ করেন। এক্ষেত্রে বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে বলে ড. মোমেন উল্লেখ করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী রুয়ান্ডাকে বাংলাদেশের ঔষধ, পিপিইসহ করোনা চিকিৎসা সামগ্রী, তৈরি পোশাক ও বাইসাইকেল আমদানির আহবান জানান। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানা গেছে।

এছাড়া দু’দেশের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদের পারস্পারিক সফর বিনিময়ের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন তাঁরা। সাম্প্রতিক বাংলাদেশের উন্নয়ন ও সম্ভাবনার বিষয়টি তুলে ধরেন ড. মোমেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের সরকার অত্যন্ত ব্যবসাবান্ধব। রুয়ান্ডাকে বাংলাদেশের অথনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগের আহবান জানান বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এতে উভয় দেশ লাভবান হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

সম্প্রতি কেনিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনারকে রুয়ান্ডায় বাংলাদেশের অনাবাসিক হাইকমিশনার হিসেবে সমবর্তী দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।