বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের খবরকে ‘মিথ্যা’ বললেন নওয়াজের স্ত্রী

সম্প্রতি গণমাধ্যমে প্রকাশ, ভারতের তারকা অভিনেতা নওয়াজুদ্দিন সিদ্দিকির স্ত্রী আলিয়া তাঁর কাছে বিবাহবিচ্ছেদ ও ভরণপোষণ চেয়েছেন। সেই সঙ্গে তিনি দুই সন্তানকে নিরাপত্তা হেফাজতে নেওয়ার আবেদন করেছেন। এ ছাড়া আলিয়া নওয়াজুদ্দিনের পরিবারের বিরুদ্ধে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ করেছেন। এমনকি ভগ্নিপতির বিরুদ্ধে আঘাতের অভিযোগ এনেছেন তিনি।

ভারতের বিনোদনভিত্তিক সংবাদমাধ্যম বলিউড বাবলের প্রতিবেদনে জানা যায়, ঘটনার নাটকীয়তা এখানেই শেষ নয়। পত্রপত্রিকার খবর, আলিয়ার সঙ্গে নওয়াজ-আলিয়ার দুজনেরই বন্ধু পীষূষ পান্ডের সম্পর্ক নিয়ে বেশ গুঞ্জন চলছে। অবশেষে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে এসব গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়ে নিজের মত ব্যক্ত করেছেন আলিয়া।

বিষয়টি স্পষ্ট করে আলিয়া লেখেন, ‘শুরুতেই পরিষ্কারভাবে জানাতে চাই, কোনো ব্যক্তির সঙ্গেই আমার কোনো সম্পর্কে নেই। আর গণমাধ্যমে আসা এ ধরনের সব দাবি সম্পূর্ণ মিথ্যা। মনে হচ্ছে, কোনো কোনো গণমাধ্যম দৃষ্টি ভিন্ন খাতে নিতে আমার ছবি নিয়ে কারসাজি করেছে।’

অপর এক টুইটে আলিয়া লেখেন, ‘কাউকে বাঁচাতে আমার সম্মান, চরিত্রের ক্ষতি করার ব্যাপারে আমি সমর্থন করি না। অর্থ দিয়ে সত্য কেনা যায় না।’ ওই টুইটে আলিয়া জানান, তিনি কোনো অন্যায় করেননি এবং সে কারণেই এসব নিয়ে চিন্তিত নন।

অন্যদিকে এ সম্পর্কে টাইমস অব ইন্ডিয়াকে পীযূষ পান্ডে বলেন, ‘গণমাধ্যমে আমি তাঁদের ডিভোর্সের নোটিশের কথা জেনেছি। আমি এখানে বলির পাঁঠা। এই সম্পর্কের গুঞ্জন সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও ভয়ঙ্কর! আমাকে কেন এখানে টানা হবে? এ নিয়ে আমার কিছু করার নেই। তাঁদের বিরোধের ব্যাপারে ও দুজনের মধ্যে কী ঘটছে, সেটি তাঁদের আশপাশের মানুষ জানেন। আমি এসব থেকে দূরে থাকতে চাই। কেন আমার নাম ও সুনাম কলঙ্কিত হবে? আমি একজনের সঙ্গে সম্পর্কে আছি ও এই ধরনের গুজব একেবারেই অরুচিকর। এটি পরিবার ও বন্ধুদের কাছে আমাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। সৌভাগ্যবশত আমার স্ত্রী সত্যতা সম্পর্কে অবগত, কেননা সেও আলিয়ার বন্ধু। নিজের নিরাপত্তার জন্য কী পদক্ষেপ নিতে হবে, তা জানতে আমি আমার আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলব।’