বৃষ্টি আটকাতে পারল না বাংলাদেশের পরাজয়


চট্টগ্রামে অবশেষে বৃষ্টি থেমেছে। আফগান অধিনায়ক রশিদ খান বাংলাদেশকে অল-আউট করতে এক ঘণ্টা সময় চেয়েছিলেন। তার প্রত্যাশা এবার পূরণ হল। বিকাল ৪:২০ এ খেলা শুরু হওয়ার পরপরই জহির খানের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান (৪৪)। এরপড়ে এক এক করে মিরাজ তাইজুল ও সৌম্য সরকারও সাকিবের পথ ধরে আউট হয়ে ফিরে গেছে। বাংলাদেশের পরাজয় আর কেউ এড়াতে পারল না। টেস্ট ড্র করতে কমপক্ষে ১৮.৩ ওভার টিকে থাকতে হবে বাকী তিন ব্যাটসম্যানকে। কিন্তু সেটা করে দেখাতে পারল না বাংলাদেশরে ব্যাটসম্যানরা।

এর আগে মধ্যাহ্ণ বিরতির পর খেলা শুরু হলে ১৩ বল পরেই আবার নেমে আসে বৃষ্টি। ওই সময়ে বাংলাদেশ ৭ রান সংগ্রহ করে। ৩৯৮ রানের বিশাল টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে গতকাল রবিবার ৬ উইকেটে ১৩৬ রান তুলে চতুর্থ দিন শেষ করে বাংলাদেশ। ৪:৪০ মিনিটে বৃষ্টির কারণে খেলা বন্ধ না হলে হয়তো কালই পরাজয় দেখতে হতো সাকিবদের। সাকিব ৩৯* আর সৌম্য ০* রানে অপরাজিত ছিলেন।

বাংলাদেশের দ্বিতীয় ইনিংস সূচনা করেন লিটন দাস আর সাদমান ইসলাম। শুরুটা মোটামুটি ভালো হলেও ৩০ রানের জুটি জহির খানের বলে লিটন দাসকে (৯) দিয়ে পতনের শুরু। একে একে ফিরে যান তিনে নামা মোসাদ্দেক হোসেন (১২), মুশফিকুর রহিম (২৩), মুমিনুল হক (৩), মাহমুদউল্লাহ (৭)। ওপেনার সাদমান চেষ্টা করেছিলেন। তার ১১৪ বলে ৪১ রানের ইনিংস থামে মোহাম্মদ নবির বলে। এই ধ্বংসযজ্ঞে নেতৃত্ব দেন আফগান অধিনায়ক রশিদ খান আর চায়নাম্যান বোলার জহির খান।

১৩৭ রানের লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংস খেলতে নামা আফগানিস্তান ২৬০ রানে অল-আউট হয়। এর আগে আফগানদের ৩৪২ রানের জবাবে ২০৫ রানেই অল-আউট হয়ে যায় বাংলাদেশ। চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ২১৫ রান তাড়া করার রেকর্ড আছে বাংলাদেশের। তাছাড়া চট্টগ্রামে বাংলাদেশ চতুর্থ ইনিংসে কখনোই রান তাড়া করে জিততে পারেনি।