ভালো দলনেতা হয়ে উঠতে সময় চান তামিম

গত মার্চে বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের নেতৃত্বের ভার ওঠে তামিম ইকবালের কাঁধে। ওই সময় করোনার ধাক্কায় ক্রিকেট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এখনো দেশকে নেতৃত্ব দেওয়ার সুযোগ হয়নি তাঁর। তাই ঘরোয়া ক্রিকেটে সবার আগ্রহ তামিমের অধিনায়কত্ব নিয়ে। কিন্তু এখনই নেতৃত্ব নিয়ে মূল্যায়ন না করার আহ্বান জানিয়েছেন তামিম। ভালো দলনেতা হয়ে উঠতে সবার কাছে সময় চাচ্ছেন দেশের অন্যতম এই ওপেনার।

আসন্ন বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে ফরচুন বরিশালকে নেতৃত্ব দেবেন তামিম। আজ শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে দলের সঙ্গে অনুশীলন শুরু করেছেন। দলের অনুশীলনের প্রথম দিন সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে জানান, নেতৃত্ব ও টুর্নামেন্ট নিয়ে নিজের ভাবনার কথা।

কিছুদিন আগে বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তামিম। ওই টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠতে পারেনি তাঁর দল। এবার নেতৃত্ব দেবেন টি-টোয়েন্টি কাপে। নতুন মিশনের আগে নেতৃত্ব চাপ হয়ে যায় কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে সাংবাদিকদের ওপরই দোষ চাপালেন বাঁ-হাতি এই ব্যাটসম্যান।

তামিম বলেন, ‘অধিনায়কত্বের চাপ… আমি তো এখন পর্যন্ত ওই রকম কোনো ম্যাচই খেলিনি। ওটা প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ হতে হবে তো। অধিনায়কত্বের প্রেশার (চাপ)—এটা আসলে আপনাদের বানানো। আমি এখনো অধিনায়ক হিসেবে কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলিনি। আমি যেদিন অধিনায়কত্ব পেয়েছি, ওইদিন বলেছি যে নেতৃত্ব নিয়ে আপনারা বিচার করবেন ছয় মাস বা এক বছর পর। পৃথিবীর যত বড়ো অথবা ছোটো নেতা হোক। খেলায় আমার অধিনায়কত্ব কতটা প্রভাব ফেলছে, সেটা অন্তত ২০ ম্যাচ পর বিচার করবেন। দুই-তিন ম্যাচ পর সেটা করতে পারেন না।’

তামিম আরো যোগ করেন, ‘এটা এমন নয় যে ছোটোবেলা থেকে স্বপ্ন দেখেছি। কখনোই স্বপ্ন দেখিনি দেশের অধিনায়ক হওয়ার। বরং সুযোগটা এসেছে আমার কাছে। চেষ্টা করব ভালোভাবে করতে। ভালো হবে বা খারাপ, সেটা সময়ই বলবে। অধিনায়ক আমি হই বা পরে যে হোক, কিংবা আগে যে ছিল… ভালো বা সফল নেতা হতে হলে অনেক সময় দিতে হবে। এক সিরিজ বা দুই সিরিজে আপনি যদি মনে করেন কাজ হচ্ছে না—এটা আসলে কারো জন্য ভালো নয়। শুধু নিজের বিষয় বরে বলছি না। আমার জন্য, দলের জন্য, দেশের জন্য, কারো জন্যই সেটি ভালো নয়। কিছু সময় দিতেই হবে। আমার কাছে যেটা মনে হয়— অধিনায়কের দায়িত্ব অন্যদের চেয়ে বেশি থাকে। সবার দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। আমি চেষ্টা করব যতটুকু সম্ভব সবকিছু করার।’