মুঠোফোনে পরকীয়া, কুয়াকাটায় ডেকে নিয়ে গণধর্ষণ!


মুঠোফোনে পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে তুলে এক গৃহবধূকে পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় নিয়ে গণধর্ষণ করেছে প্রেমিক ও তার সহযোগীরা।

গত শনি ও রোববার এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে আজ মঙ্গলবার সকালে মহিপুর থানায় সংবাদ সম্মেলন করেন পটুয়াখালীর পুলিশ সুপার মইনুল হাসান।

গণধর্ষণে জড়িত থাকার অভিযোগে কুয়াকাটার পাঁচ যুবককে আটক করা হয়েছে। তাদের মধ্যে তিনজন হলেন আলমগীর (২৫), সাইফুল (২৮) ও খলিল (৩৫)। বাকি দুজনের নাম জানা যায়নি।

সংবাদ সম্মেলনে মইনুল হাসান জানান, মুঠোফোনে কুয়াকাটার খলিলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন দিনাজপুরের ওই নারী। তিনি দুই সন্তানের মা। খলিলের সঙ্গে দেখা করতে গত শনিবার তিনি কুয়াকাটায় যান। সেখানে তাঁর যমুনা গেস্টহাউসে ওঠার কথা ছিল। সেই অনুযায়ী ওই গেস্টহাউসেই তিনি ওঠেন। ওই সময় খলিল সেখানে ছিলেন না। ওই রাতে গেস্টহাউসের ব্যবস্থাপক সাইফুল ও আলমগীর তাঁকে ধর্ষণ করেন। পরদিন রোববার খলিল ওই নারীকে বোঝান যে এ ঘটনায় তিনি জড়িত নন। এরপর খলিল তাঁকে বেঙ্গল গেস্টহাউসে নিয়ে যান। সেখানে গেস্টহাউসের ব্যবস্থাপকের সহায়তায় খলিলসহ অন্যরা তাঁকে দ্বিতীয়বার ধর্ষণ করেন।

পরে পুলিশ টের পেয়ে ওই নারীকে উদ্ধার করে মহিপুর থানায় নিয়ে যায়। গণধর্ষণের জড়িত পাঁচজনকে আটক করে।