রাসেলকে কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া প্রশ্নে রায় বৃহস্পতিবার

রাজধানীর মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ফ্লাইওভারে দুই বছর আগে গ্রিন লাইন পরিবহনের একটি বাসের চাপায় এক পা হারানো রাসেল সরকারকে এক কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া প্রশ্নে জারি করা রুলের ওপর আগামী পহেলা অক্টোবর বৃহস্পতিবার রায়ের জন্য দিন ধার্য করা হয়েছে।

বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ মঙ্গলবার এ আদেশ দেন। এর আগে গত ৫ মার্চ রুলের ওপর শুনানি শেষে ১৫ এপ্রিল রায়ের দিন নির্ধারণ করেছিলেন আদালত। কিন্তু করোনাভাইরাসের সংক্রমণের প্রেক্ষাপটে নির্ধারিত দিনে রায় হয়নি। এ অবস্থায় ওই আদালতের গতকালের কার্যতালিকায় মামলাটি রায়ের জন্য থাকায় বিষয়টি আদালতের নজরে আনেন গ্রিন লাইনের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শাহ মঞ্জুরুল হক। এরপর আদালত রায়ের দিন ধার্য করেন।

মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ফ্লাইওভারে ২০১৮ সালের ২৮ এপ্রিল গ্রিন লাইন পরিবহনের ধাক্কায় মারাত্মক আহত হন গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার পার্বতীপুর গ্রামের মো. শফিকুল আসলামের ছেলে রাসেল সরকার। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক পর্যায়ে তার একটি পা কেটে ফেলতে হয়। আরেক পা’ও মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ অবস্থায় রাসেলের পক্ষ হয়ে তাকে আইনগত সহায়তা দিতে এগিয়ে আসেন গাইবান্ধার একই এলাকার বাসিন্দা জাতীয় সংসদের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য (কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক) সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট উম্মে কুলসুম স্মৃতি। এক কোটি টাকা ক্ষতিপুরণ চেয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন এই নারী নেত্রী। হাইকোর্ট রুল জারি করেন। গতবছর ১২ মার্চ আদালত থেকে তাকে ৫০ লাখ টাকা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়। পরবর্তীতে ওইবছরের ১০ এপ্রিল হাইকোর্ট এক আদেশে প্রতিমাসে ৫ লাখ টাকা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়। এই নির্দেশের পর গতবছর জুলাই পর্যন্ত তিনদফায় মোট সাড়ে ১৩ লাখ টাকা দেয় গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষ। তবে আপিল বিভাগ এ আদেশ স্থগিত করে দেন। এরপর থেকে আর কোনো টাকা দেয়নি পরিবহণ সংস্থাটি। এ অবস্থায় এককোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া প্রশ্নে রুলের ওপর চূড়ান্ত শুনানি হয়।