শরণার্থী ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের দুপক্ষের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ-গোলাগুলি

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় শরণার্থী ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে রোহিঙ্গাদের দুপক্ষের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের সময় একজন খুন হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছে আরো ২০ রোহিঙ্গা।

আজ রোববার ভোর পৌনে ৪টার দিকে উপজেলার চাকমারকুল রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের সি-ব্লকে এ সংঘর্ষ ঘটে বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন টেকনাফের হোয়াইক্যং পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) নুরে আলম।

নিহত নুর হাকিম (২৭) চাকমারকুলের ২১ নম্বর ক্যাম্পের সি-ব্লকের হোসেন আলীর ছেলে।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, ভোরে উখিয়ার হাকিমপাড়া ও জামতলী শরণার্থী শিবির থেকে একদল রোহিঙ্গা টেকনাফের চাকমারকুল রোহিঙ্গা শিবিরের সি-ব্লকে যায়। দুই উপজেলা হলেও ক্যাম্প দুটি পাশাপাশি। দুটি জায়গার দূরত্ব প্রায় দুই কিলোমিটার। ক্যাম্পের মধ্য দিয়ে রাস্তা আছে।

সেখানে চাকমারকূল ক্যাম্পের তোহা বাহিনীর সঙ্গে প্রতিপক্ষের সমর্থকদের সংঘর্ষ ও গোলাগুলি হয়। এ সময় উভয়পক্ষ ৬০-৭০টি গুলি করে। গুলিতে ঘটনাস্থলেই নুর হাকিম নিহত হন। এ সময় আহত ১২ জনকে সেভ দ্য চিলড্রেনের হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

আজ দুপুরে এসআই নুরে আলম জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এর আগেও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শরণার্থী শিবিরে রোহিঙ্গাদের বিভিন্ন পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ও খুনের ঘটনা ঘটেছে।