শিবচরে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত ৫

স্থগিত হওয়া ১ম দফা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মাদারীপুরের শিবচরে এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের উপর প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীর পক্ষের হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় নারীসহ অন্তত ৫ জন আহত হয়েছে। এ সময় হামলাকারীরা চেয়ারম্যান প্রার্থীর নির্বাচনী ক্যাম্প ও তার সমর্থকদের ঘরবাড়ি ভাঙচুর করেছে। আহতদের শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। ২ জনকে ফরিদপুর প্রেরণ করা হয়েছে। উত্তেজনা থাকায় পুলিশ ঘটনাস্থলে অবস্থান নিয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, শুক্রবার (০২ এপ্রিল) রাত আনুমানিক সাড়ে ৮ টার দিকে উপজেলার বহেরাতলা উত্তর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী জাকির হোসেন হায়দারের সোতারপাড় এলাকার নির্বাচনী ক্যাম্পে বসেছিলেন ইদ্রিস আকন ও ইমন খালাসী নামের দুই সমর্থক। এসময় প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান প্রার্থী মো: নুরুল হক শিকদারের ভাই আজিজুল শিকদার ওই ক্যাম্পে আসেন। এসময় আজিজুলের সাথে ইদ্রিস আকনের কথা কাটাকাটি হয়। এরই সুত্র ধরে নুরুল হক শিকদারের পক্ষ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়ে জাকির হোসেন হায়দারের নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর করে ও সমর্থকদের বেদম মারধর করে। এসময় হামলাকারীরা ২টি বসতবাড়িতেও হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। হামলায় ইদ্রিস আকন (৫০), মাহমুদা বেগম (৪২), জাবেদ হাওলাদার (৩৫), লিখন আকন (২৩), ইমন খালাসী (২০), আ: রহমান (১৯) আহত হয়। আহতদের মধ্যে মাহমুদা বেগমসহ ২জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর মেডিক্যালে পাঠানো হয়েছে। অপর আহতদের শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

সুত্রে আরো জানা যায়, নির্বাচনী ক্যাম্পটি জাকির হোসেন হায়দার ব্যবহার করলেও মূলত এটি প্রতিদ্বন্দী চেয়ারম্যান প্রার্থী মো: নুরুল হক শিকদারের গোষ্ঠীর লোকদের। শিকদার বংশের অনেকেই নুরুল হক শিকদারের পক্ষে না থেকে জাকির হোসেনের পক্ষে নির্বাচন করায় তীব্র গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব বিরাজ করছিল। এছাড়াও দুপক্ষের সংর্ঘষে নির্বাচন আচরনবিধি লংঘনের অভিযোগে কয়েকদিন আগে প্রার্থী জাকির হোসেন হায়দারের ছেলেসহ ৬ জনকে কারাদণ্ড দেয় ভ্রাম্যমান আদালত।

শিবচর থানার ওসি মিরাজ হোসেন বলেন, পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক রয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।