সাইক্লোন আম্পানের তাণ্ডবে দেশের বিভিন্ন স্থানে নিহত অন্তত ৭

সুন্দরবনসহ বাংলাদেশের উপকূলে আছড়ে পড়া সুপার সাইক্লোন আম্পানের প্রভাবে নারী-শিশুসহ সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। পটুয়াখালীতে শিশুসহ দুজন, ভোলায় এক বৃদ্ধ, সাতক্ষীরায় এক নারী, পিরোজপুর এবং বরগুনায় অপর দুই ব্যক্তি মারা যান। এ ছাড়া যশোরে গাছ চাপা পড়ে মা ও মেয়ের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

গতকাল বুধবার রাত ৯টা ৮ মিনিটে ঘণ্টায় ১৪৮ কিলোমিটার বেগে সাতক্ষীরায় আঘাত হানে ঘূর্ণিঝড় আম্পান। এর আগে, সন্ধ্যা ৬টা ১০ মিনিট থেকে ঘূর্ণিঝড়টি উপকূলে আঘাত হানা শুরু করে। আম্পানের প্রভাবে দেশের বিভিন্ন স্থানে অনেক ঘর-বাড়ি ও গাছপালা ভেঙে পড়েছে। বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে পড়ছে। কিছু কিছু জায়গায় গাছ পড়ে সড়ক বন্ধ হয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কাঁচা ঘর ও বিদ্যুৎ সরবরাহের অবকাঠামো। কয়েক ফুট বেড়েছে নদনদীর পানি। অনেক স্থানে নদীর পানি প্রবল বে‌গে আছড়ে পড়ছে বে‌ড়িবাঁধের ওপর।

আবহাওয়াবিদ মো. বজলুর রশিদ গতকাল বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে জানান, উপকূল অতিক্রমরত ঘূর্ণিঝড় আম্ফান আরও উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে উপকূল অতিক্রম সম্পন্ন করে বর্তমানে সাতক্ষীরা জেলা ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। এটি আরো উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে বৃষ্টি ঝড়িয়ে ক্রমান্বয়ে দুর্বল হয়ে যেতে পারে বলে তিনি জানান।