সাত কর্মদিবসের মধ্যে বিচারের প্রতিশ্রুতি ঢাবি উপাচার্যের


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সলিমুল্লাহ মুসলিম (এসএম) হলে ছাত্র নির্যাতনের ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী সাত কর্মদিবসের মধ্যে দোষীদের বিচারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

মঙ্গলবার বিকেলে ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরসহ ভুক্তভোগী কয়েকজন তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তাঁদের এই প্রতিশ্রুতি দেন উপাচার্য।

তবে সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত কাজ শেষ করা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন তদন্ত কমিটির প্রধান অধ্যাপক সাব্বির আহমেদ।

জানা যায়, এস এম হল সংসদের জিএস প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দেওয়া উর্দু বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র মো. ফরিদ হোসেনকে জোর করে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করায় ছাত্রলীগ। রুমে ইয়াবা ঢুকিয়ে হল থেকে বেরও করে দেওয়া হয়। এরপর গত ১ এপ্রিল ‘হলে থাকার অভিযোগে’ তাঁকে রড ও লাঠি দিয়ে পেটানো হয়।

ভুক্তভোগীর অভিযোগ, হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তাহসান আহমেদ রাসেল, সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান তাপস, হল সংসদের জিএস জুলিয়াস সিজার তালুকদার, হল ছাত্রলীগের সহসহভাপতি ওয়াসিফ হাসান পিয়াস, সাংগঠনিক সম্পাদক রুবেল হোসেন, সানাউল্লাহ সায়েম ও সাব্বির তাঁকে রুম থেকে বের করে হলের ডাইনিং রুমে মারধর ও রক্তাক্ত করেন। এতে ফরিদের শরীরে ৩২টি সেলাই দিতে হয়। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দেন তিনি।

এই ঘটনার বিচার চাইতে পরদিন ২ এপ্রিল এসএম হলে যান ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর, সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন, শামসুন্নাহার হলের ভিপি তাসনিম আফরোজ ইমি, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের ঢাবি শাখার সভাপতি উম্মে হাবিবা বেনজির, কোটা সংস্কার আন্দোলনের যুগ্ম আহ্বায়ক মুহাম্মদ রাশেদ খাঁন, ফারুখ হোসেনসহ অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী। তাঁরা যখন হলের গেটে পৌঁছান তখন তাদের ওপর হামলা করেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ সময় ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি বেনজিরের শরীরে লাথি মারেন এক ছাত্রলীগ কর্মী। একই সময় ভিপি ইমির গায়েও হাত তোলা হয়। ডিম হামলা করা হয় শিক্ষার্থীদের ওপর।

অন্যদিকে, ভিপি নুর, আখতার হোসেন, রাশেদ খাঁন, ফারুখ হোসেনসহ বেশ কয়েকজনকে হল প্রাধ্যক্ষের রুমে অবরুদ্ধ করেন ছাত্রলীগের হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তাহসান আহমেদ রাসেল, সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান তাপস, হল সংসদের ভিপি মুজাহিদ কামাল, জিএস জুলিয়াস সিজার তালুকদার, সাহিত্য সম্পাদক আকিব মোহাম্মদ ফুয়াদসহ হল সংসদের নেতাকর্মীরা।