‘সাবেক প্রধানমন্ত্রীর ডিভিশন জেলকোডে নেই’


কারা অধিদফতরের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন বলেছেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী যে ডিভিশন পাবেন, এটা জেলকোডের কোথাও নেই। জেলকোডে সাবেক রাষ্ট্রপতির ডিভিশন পাওয়ার কথা উল্লেখ আছে। রোববার দুপুরে কারা অধিদফতরে সাংবাদিককের সঙ্গে আলাপকালে তিনি একথা বলেন। মূলত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৫ বছরের কারাদণ্ড পাওয়া বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ডিভিশন প্রসঙ্গে সৈয়দ ইফতেখার একথা বলেন।

যদিও সকালে খালেদা জিয়ার ডিভিশন চেয়ে বিশেষ জজ আদালত-৫ এ আবেদন করেন তার আইনজীবীরা। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান জেলকোড অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে কারা কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন।

ইফতেখার উদ্দিন বলেন, ‘জেলকোড অনুযায়ী খালেদা জিয়াকে সাধারণ বন্দি হিসেবে রাখা হয়েছে। আদালতের নির্দেশনা পেলে তাকে ডিভিশন বা অন্যান্য সুবিধা দেয়ার বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে।’

খালেদা জিয়া কয়েদির পোশাক পরছেন কিনা এমন প্রশ্নে আইজি প্রিজন্স বলেন, ‘জেলকোড অনুসারে একজন সাধারণ বন্দিকে কয়েদির পোশাকই পরার কথা।’

খালেদা জিয়ার খাবার-দাবার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সাধারণ বন্দি হিসেবে কারাগার থেকেই খালেদা জিয়াকে খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে। বাইরের শুষ্ক খাবার তার জন্য অ্যালাউ করা হবে। এছাড়া বাইরের অন্য কোনো খাবার তাকে দেয়া যাবে না।’

বিএনপি নেত্রীর সঙ্গে ব্যক্তিগত সেবিকা রাখার বিষয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে সৈয়দ ইফতেখার বলেন, ‘খালেদা জিয়ার জন্য ব্যক্তিগত কোনো সেবিকা রাখা হয়নি। তার চিকিৎসার জন্য একজন নার্স রাখা হয়েছে।’

উল্লেখ্য, গত ৮ ফেব্রুয়ারি পুরনো ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন।

এছাড়া মামলার অপর আসামি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানসহ বাকি আসামিদের ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়।

তাছাড়া তাদের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ওইদিনই নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নেয়া হয় খালেদা জিয়াকে।