১৩ প্রশ্নে বদলে যাবে জীবন


কীভাবে আমাকে অন্যরা ভিন্নভাবে দেখে?
আপনি কি কখনো নিজের কণ্ঠস্বর রেকর্ড করে শুনেছেন? যেহেতু কণ্ঠস্বর মানুষের খুলির মধ্য দিয়ে অতিক্রম করে, তাই অন্যরা যেভাবে আমাদের শুনে থাকে, আমরা নিজেদের সেভাবে শুনি না। কথাটি আমাদের আচরণের ক্ষেত্রেও সত্য। আমরা কীভাবে চিন্তা করছি তার ওপর ভিত্তি করে আমাদের আচরণে হস্তক্ষেপ করি। অন্যরা আপনাকে কীভাবে দেখে- এটি জানার চমৎকার উপায় হলো ৩৬০ অ্যাসেসমেন্ট। এর মাধ্যমে অজ্ঞাত, গঠনমূলক ও নির্ভুল ফিডব্যাক পাওয়া যায়। যদি আপনি ৩৬০ অ্যাসেসমেন্টের মধ্য দিয়ে যেতে চান, তাহলে প্রাসঙ্গিক ও সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন করুন। বড় প্রশ্ন ও প্রশ্নের সরলীকরণ এড়িয়ে চলুন। উদাহরণস্বরূপ, যখন মিটিংয়ে সবাই আমার সঙ্গে দ্বিমত করেছিল তখন আমি কি নিজেকে ভালোভাবে সামলেছি? অথবা, আমি কি ভালো বস? নিশ্চিত হোন, ফিডব্যাকের সময় আপনি অস্বাভাবিক প্রতিক্রিয়া দেখাননি এবং অন্যের মতও বিবেচনা করছেন। আপনি যদি রেগে যান অথবা আত্মরক্ষা করেন, তাহলে তাদের কাছ থেকে সঠিক ফিডব্যাক পাবেন না অথবা তারা মতামত জানাবেন না।

আজ তুলনামূলক ভালো কী করেছি?
নিজেকে প্রশ্ন করুন- আজকের কাজটি পূর্বের তুলনায় ভালো হয়েছে কিনা? নিজেকে প্রতিষ্ঠিত ও সফল করতে হলে কাজের উত্তরোত্তর উন্নয়ন প্রয়োজন। যেকোনো উত্তরোত্তর উন্নয়নের জন্য দিনশেষে কাজের মূল্যায়ন জরুরি। কাজটি কেমন হয়েছে? এটি কি পূর্বের মান অতিক্রম করেছে? আজকে সবচেয়ে ভালোভাবে কী করেছি? নিজেকে প্রশ্ন করে জেনে নিন।

আমি কি নিজের কাজ গুরুত্ব দিচ্ছি?
আপনি কি কোনো কারণে আপনার কাজকে অবহেলা করছেন? মনের মতো চাকরি হয়নি বলে মন খারাপ? ইদানিং পরিবারকে বেশি সময় দেয়ার কারণে কি কর্মক্ষেত্রে যেতে দেরি হচ্ছে? কারণ যাই হোক, নিজের কাজকে কখনো অবহেলা করতে নেই। কোনো কাজের প্রতি ভালোবাসা তৈরি করতে অথবা অধিকতর ভালো পদে যেতে অথবা সমালোচনা বন্ধ করতে অথবা সফলতার পথ মসৃণ করতে কাজকে গুরুত্ব দিতে হবে। দিনশেষে নিজেকে প্রশ্ন করুন- কোনো কারণে আপনার কাজ অবহেলিত হয়েছে কিনা?

লক্ষ্য অর্জিত হলে আমি কেমন অনুভব করব?
সফলতার অন্যতম পূর্বশর্ত হলো লক্ষ্যপূরণ না হওয়া পর্যন্ত সন্তুষ্ট না হওয়া। কিন্তু তার মানে এটা নয় যে, আপনার সকল লক্ষ্য পূরণ হলে আপনি কেমন অনুভব করবেন তা নিয়ে ভাবা যাবে না। বরং এ ধরনের ভাবনা আপনাকে প্রণোদনা দেবে। ফলে কাজে গতি আসবে, কাজের প্রতি উৎসাহ বহুগুণ বেড়ে যাবে, কাজকে অবহেলা করার প্রবণতা কমে যাবে ও সফলতার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে। আপনি কাজের পাশাপাশি এটাও চিন্তা করুন- সফল হলে আপনার অনুভূতি উদযাপনের জন্য কী করবেন।